kolkata:kolkata television serial production house and technician salary problem | সিরিয়ালের নিশির ডাকে ভরসা পুরোনো পর্বই

0
19


রাজা চট্টোপাধ্যায়

সাঁঝবাতি জ্বেলেই প্রিয় ধারাবাহিকে ডুব দেওয়া এখন ‘ঘর ঘর কি কাহানি’। আটপৌরে বাঙালি জীবনে মেগা সিরিয়ালের ‘ইভনিং শো’ না-থাকলে মহাভারতও অশুদ্ধ হওয়ার উপক্রম হয়। শহরে-গ্রামে গত ক’দিন ধরেই নানা মুখে প্রশ্ন, কালও কি পুরোনোটাই দেখতে হবে? টেলিপাড়ায় ধর্মঘট আর কিছুদিন চললে টিভি রিমোটের দখল নিয়েও গৃহযুদ্ধ তীব্র হতে পারে বহু বাড়িতেই। সময় কাটছে না। তিন দিন হয়ে গেল হাপিত্যেশ চাউনিতে টিভির দিকে তাকিয়ে পুরোনো এপিসোডই গিলছেন ‘নিষ্ঠাবান’ দর্শকেরা।

বিজ্ঞাপনের বিরতির আগে খোদ ‘রানি মা’ এসে হাতজোড় করে পর্দায় বলছেন, ‘টেলিভিশন শিল্পে ধর্মঘটের জেরে আপনাদের প্রিয় ধারাবাহিকের নতুন পর্ব সম্প্রচার করা সম্ভব হচ্ছে না। খুব তাড়াতাড়িই নতুন পর্ব দেখতে পাবেন আপনারা।’ কিন্তু কবে? ভ্যাপসা ভাদ্রে থেকেই থেকেই আকাশের মুখ ভার। তার চেয়েও ভার মুখে হেঁসেল আর ড্রয়িংরুমের মাঝে চঞ্চল পায়চারি। সিরিয়ালের নেশা লেগে নির্ভেজাল অবসর জীবনে প্ল্যাটফর্মের আড্ডার পাটও চুকিয়ে দিয়েছেন কত জেঠু-মেশো-পিসেমশাই। অগত্যা তাঁরাও ফের দল বেঁধে প্ল্যাটফর্মমুখী।

বেহালার অজন্তা সিনেমা সংলগ্ন এলাকার বাসিন্দা ৫৯ বছর বয়সী রমলা রায়ের নাতিকে নিয়ে খেলার সময় বেড়ে গিয়েছে। কমলা বললেন, ‘আমি ছ’টা থেকে বসি। সিরিয়াল দেখতে দেখতে ওকেও সামলাই। কিন্তু একটা দিন ওকে নিয়েই গোটা সময়টা কাটাতে হচ্ছে। পুরোনো এপিসোডগুলো চালানোই থাকছে। টিভি বন্ধ করে উঠে গেলে আবার মনে হচ্ছে একটু খুলি। নিশির ডাকের মতো টান যে।’

বেলঘরিয়ার বাসিন্দা ষাট বছরের শাশ্বতী ঘোষের বক্তব্য, ‘আমি রানি রাসমণি কোনওভাবেই মিস করি না। এখন পুরোনো এপিসোডগুলো দেখতে যে ভাল লাগছে তা নয়। কী আর করব? বিনোদন চ্যানেলে গিয়ে পুরোনো দিনের সিনেমা দেখছি। না-হলে খবরের চ্যানেলও ঘোরাচ্ছি। একটাই প্রার্থনা, যত তাড়াতাড়ি সম্ভব নতুন এপিসোড দেখাক।’ সিঙ্গুরের ছিন্নামোড় এলাকার বাসিন্দা সুরজিৎ নিয়োগী অবশ্য ছেলের লেখাপড়া নিয়ে এমনিতেই বেশ চিন্তায় থাকেন। তাঁর বারো বছরের ছেলে ‘জয় বাবা লোকনাথ’ দেখবেই দেখবে। সুরজিৎ সহাস্যে বললেন, ‘সোমবার থেকে পুরোনো এপিসোড রিপিট হচ্ছে বলে মা-বউ কেউই আর সন্ধ্যায় টিভি চালাচ্ছে না। তাই ছেলের লেখাপড়ায় ফাঁকিটা কমেছে।’

জনপ্রিয় মেগা সিরিয়ালের ‘পুরোনো পর্বগুলো’ আবার অনেকের কাছে বেশ চিত্তাকর্ষক হয়ে উঠেছে। মাস খানেক হল অবসর জীবন উপভোগ করতে শুরু করেছেন কালীঘাটের বাসিন্দা মনোজকুমার দত্ত। তিনি বললেন, ‘এমন সময় ধর্মঘটটা হল যখন করুণাময়ী রানি রাসমণি সিরিয়ালটা বেশ আকর্ষণীয় জায়গায় পৌঁছে গিয়েছিল। এক মাস আগেও সার্ভিস লাইফে ছিলাম বলে পুরোনো এপিসোডগুলো আগে দেখা হয়নি। এখন সেগুলোও দেখে নিচ্ছি।’

শনিবার থেকে টেলিপাড়ায় শুটিং বন্ধ। তিরিশটার মতো সিরিয়াল থমকে গিয়েছে। রানি রাসমণি, জয় বাবা লোকনাথ, কুসুমদোলা, ফাগুন বউ, কৃষ্ণকলি, বকুল কথা, সীমারেখা, সাত ভাই চম্পার পুরোনো পর্বই চলছে। তবে মানুষের মন ধরে রাখতে হাই টিআরপি পর্বগুলোই নতুন করে দেখানো হচ্ছে কিছু ক্ষেত্রে। এই বাজারে নতুন শুরু হওয়া ‘ভূমিকন্যা’ আর ‘বাজল তোমার আলোর বেণু’ প্রায় ফাঁকা মাঠেই গোল করার চেষ্টায়।





Source link

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here