right to equality violated by adultery law, says supreme court | ‘ব্যাভিচারে শাস্তির বিধানে নারী-পুরুষ সাম্য কই!’

0
26

এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: বিবাহিত জীবনের শুদ্ধতা রক্ষা করা জরুরি, কিন্তু তার জন্য সাংবিধানিক সাম্য লঙ্ঘন করা হচ্ছে। বৃহস্পতিবার এক পিটিশনের শুনানিতে এমনই মন্তব্য করল সুপ্রিম কোর্টের বেঞ্চ।

ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪৯৭ ধারার বৈধতাকে চ্যালেঞ্জ করা এক পিটিশনের শুনানিতে প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রর নেতৃত্বে সুপ্রিম কোর্টের পাঁচ সদস্যের সাংবিধানিক বেঞ্চ এদিন জানিয়েছে, বিবাহিত স্ত্রী ও পুরুষের মধ্যে বৈষম্য তৈরি করেছে আইনের ওই ধারা।

ওই ধারার একাংশে উল্লেখ করা হয়েছে যে, কোনও বিবাহিত মহিলা তাঁর স্বামীর সম্মতিতে অন্য কোনও বিবাহিত পুরুষের সঙ্গে যৌন সম্পর্ক তৈরি করলে তাঁর বিরুদ্ধে ব্যাভিচারের মামলা করা যাবে না। বিষয়টির তীব্র সমালোচনা করেছে আদালত।

এদিন বিচারপতি আর এফ নরিম্যান, বিচারপতি এ এম খান্ডউইলকর, বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড় এবং বিচারপতি ইন্দু মালহোত্রার বেঞ্চ মন্তব্য করে, ‘বিবাহের শুদ্ধতা রক্ষা অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ, কিন্তু এইন আইন প্রয়োগের যে পদ্ধতি রয়েছে তা সংবিধানের ১৪ নম্বর অনুচ্ছেদের (সাংবিধানিক সমানাধিকার) পরিপন্থী।’

পিটিশনকারী ইতালিতে প্রবাসী ভারতীয় জোসেফ শাইনের আইনজীবী কালীশ্বরম রাজ ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪৯৭ ধারার বিভিন্ন ব্যাখ্যার কথা উল্লেখ করে বলেন, এই আই কখনই দুই জন অবিবাহিত প্রাপ্তবয়স্কের মধ্যে পারস্পরিক সম্মতিক্রমে তৈরি যৌন সম্পর্ককে মান্যতা দেয় না। বিবাহিত স্ত্রী ও পুরুষের ক্ষেত্রে আদালতে ব্যাভিচারের অভিযোগ পৃথক ভাবে দেখা হয়।

তাঁর দাবি, ব্যাভিচারের অভিযোগ প্রমাণিত হলে পুরুষরা এক রকম শাস্তি পেলেও বিবাহিত মহিলাদের ক্ষেত্রে আদালতের বিচারে তারতম্য থাকে।

খবরটি ইংরেজিতে পড়ুন

Source link

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here