nation: gujarat unrest: 431 arrested, cm claims situations under control – Gujarat unrest: গ্রেফতার ৪৩১, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বলে দাবি মুখ্যমন্ত্রীর

0
16


এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: গুজরাতে সাম্প্রতিক পরিস্থিতির জেরে জনগণকে হিংসা থেকে বিরত থাকার আবেদন জানালেন মুখ্যমন্ত্রী বিজয় রুপানি। তাঁর দাবি, গত ৪৮ ঘণ্টায় রাজ্যে কোনও রকম অপ্রীতিকর ঘটনা দেখা যায়নি। পাশাপাশি, শিল্পাঞ্চলে ভিনরাজ্যের অধিবাসীদের নিরাপত্তায় অতিরিক্ত বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন রাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী প্রদীপ সিং জাদেজা।

গত ২৮ সেপ্টেম্বর সবরকান্থা জেলায় ১৪ মাসের শিশু ধর্ষণের জেরে বিহারের এক বাসিন্দা ধরা পড়ার পরে উত্তর গুজরাতের ছয়টি জেলায় হিন্দিভাষীদের বিরুদ্ধে বিদ্বেষের আগুন জ্বলে উঠেছে। উত্তর ভারতীয় বিকাশ পরিষদের সভাপতি মহেশ সিং কুওয়াহের দাবি, গত এক সপ্তাহে রাজ্য ছেড়ে পালিয়েছেন কুড়ি হাজারের বেশি মধ্যপ্রদেশ, উত্তর প্রদেশ ও বিহারের বাসিন্দারা। সরকার পাল্টা বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে যে, হিংসাত্মক ঘটনায় জড়িত থাকার জন্য প্রায় চারশো জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

সোমবার রাজকোটে মুখ্যমন্ত্রী রুপানি জানিয়েছেন, পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়েছে। তিনি বলেন, ‘পুলিশের একাগ্র চেষ্টার ফলে পরিস্থিতি আপাতত নিয়ন্ত্রণে রয়েছে এবং গত ৪৮ ঘণ্টায় কোনও অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি বজায় রাখতে আমরা বদ্ধপরিকর এবং কোনও সমস্যায় পড়লে মানুষ পুলিশের দ্বারস্থ হতে পারেন। আমরা ওঁদের নিরাপত্তা দেব।’

অন্য দিকে, এদিন গান্ধীনগরে এক সাংবাদিক সম্মেলনে রাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জাদেজা জানিয়েছেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে গুজরাত সরকারের প্রতিটি পদক্ষেপের বিষয়ে কেন্দ্রকে বিস্তারিত জানানো হয়েছে। তাঁর দাবি, হিন্দিভাষীদের বিরুদ্ধে আক্রমণের জেরে এ পর্যন্ত ৪৩১ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে, ৫৬টি এফআইআর দায়ের করা হয়েছে। কংগ্রেসের নাম না করে জাদেজা জানান, ‘গত ২২ বছর যাবত্‍ রাজ্যে ক্ষমতায় যারা নেই, তারাই এই ষড়যন্ত্রর মূল হোতা। ভিনরাজ্যের শ্রমিকদের উপর হামলা বরদাস্ত করা হবে না। তাঁদের উপর হামলা ঠেকাতে আমাদের জরুরি পদক্ষেপ করার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।’

তিনি আরও জানিয়েছেন, ‘একাধিক জায়গায় রাজ্য রিজার্ভ পুলিশের শিবির তৈরি করা হয়েছে। ওই সমস্ত অঞ্চলে টহলদারিও চলেছে। শিল্পাঞ্চলে আমরা অতিরিক্ত বাহিনী মোতায়েন করেছি।’

ভিনরাজ্যের হিন্দিভাষী শ্রমিকদের উপর হামলার জেরে ঠাকুর সেনার বেশ কিছু সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বেশ কিছু এফআইআর-এ সংগঠনের নামও উল্লেখ করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়ে সেনা সভাপতি তথা কংগ্রেস বিধায়ক অল্পেশ ঠাকুর অভিযোগ করেছেন, উদ্দেশ্য প্রণোদিত সংগঠনের নবীন সদস্যদের ফাঁসানো হচ্ছে।





Source link

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here